Friday, November 26, 2021

‘পাহাড়ি কোটা’ কেড়ে নেওয়ার প্রতিবাদে ঢাকায় পিসিপির মিছিল ও সমাবেশ

ঢাকা প্রতিনিধি ।। “পাহাড়ি কোটা কেড়ে নেওয়ার প্রতিবাদে ছাত্র সমাজ সোচ্চার হও” এই আহ্বানে উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পিছিয়ে পড়া অনগ্রর জনগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের জন্য বরাদ্দকৃত আসনে সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের অন্তর্ভূক্তির প্রতিবাদে আজ ২৬ নভেম্বর ২০২১ ইং (শুক্রবার) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্যাম্পাসে মিছিল ও সমাবেশ করেছে বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ (পিসিপি) ঢাকা শাখা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে বিকেল ৩ টায় শুরু হওয়া সমাবেশ পরিচালনা করেন পিসিপি ঢাকা শাখার সাধারন সম্পাদক অর্ণব চাকমা।

পিসিপি ঢাকা শাখার সভাপতি তুলতুল চাকমার সভাপতিত্বে উক্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সংগঠনটির সাংগঠনিক সম্পাদক রিটেন চাকমা, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক নীতি চাকমা, ইউনাইটেড ওয়ার্কার্স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাধারন সম্পাদক প্রমোদ জ্যোতি চাকমা এবং পিসিপির কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক সম্পাদক শুভাশীষ চাকমা।

এতে সংহতি জানিয়ে আরও বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন  প্রতিনিধি ইকরামুল হক ইমন।সমাবেশে শেষে একটি মিছিল বের করা হয়।  মিছিলটি রাজু ভাস্কর্য থেকে শুরু হয়ে অপরাজেয় বাংলা হয়ে মধুর ক্যান্টিনে এসে  শেষ হয়

ইউনাইটেড ওয়ার্কার্স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাধারন সম্পাদক প্রমোদ জ্যোতি চাকমা বলেন,আওয়ামী সরকার ছাত্রদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ না হলে সিটি কর্পোরেশনের গাড়ি চাপায় নটরডেমের মেধাবী ছাত্রের অকালে প্রাণ যেত না। শ্রমিকদের সাথে পুঁজিপতিরা কখনো মাসের পর মাস বেতন বন্ধ করে রাখে।অবিলম্বে ছাত্রদের যৌক্তিক দাবি মানতে হবে এবং শ্রমিকদের বেতন বৃদ্ধি করতে হবে।

বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন প্রতিনিধি ইকরামুল হক ইমন বলেন, পাহাড়িদের জন্য বরাদ্দ কোটায় যদি বাঙ্গালীদের অগ্রাধিকার দেওয়া হয়।তাহলে পাহাড়িরা পিছিয়ে যাবে শিক্ষা কিংবা সমাজ বিনির্মানে। তাই অবিলম্বে কোটা রেজাল্ট সংশোধন করে প্রকাশ করতে হবে।

পিসিপির কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক শুভাশীষ চাকমা বলেন, পাহাড়ে পর্যাপ্ত পরিমাণে বিদ্যালয়ের অভাব। পাহাড়ি ছাত্ররা দীর্ঘ মাইল হেঁটে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যায়।যোগ্যতা সম্পন্ন শিক্ষকের অভাবে বুদ্ধিবৃত্তিক চিন্তা ভাবনা বাঙ্গালীদের সমপর্যায়ের  হয়ে উঠে না। এদেশের সংখ্যালঘুরা মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিল একটি সাম্যবাদী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায়। স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছরে ও রাষ্ট্র নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ। পাহাড়ে পাহাড়িদের উপর ডজনের অধিক হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়েছে রাষ্টীয় মদদে। তার বিচার এখনো হয়নি। ভূমি বেদখলের মত জঘন্যতম ঘটনা পাহাড়ে প্রতিনিয়ত হচ্ছে। পাহাড়ে প্রতিনিয়ত মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটছে। এই থেকে বোঝা যায় রাষ্ট্র পাহাড়ি কিংবা অন্যান্য সংখ্যালঘুদে সৌহার্দপূর্ণ আচরণের পরিবর্তে দূরে ঠেলে দিচ্ছে।

তিনি বলেন, শিক্ষা ক্ষেত্রেও সংখ্যালঘুদের বরাদ্দকৃত কোটায় অগ্রসর জাতিগোষ্ঠী অন্তর্ভুক্ত দেখে আমরা অবাক হই। একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে দেশের অনগ্রসর ও সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর প্রতি এমন বৈষম্য কেন হবে? অবিলম্বে উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভর্তি পরীক্ষায় প্রকাশিত কোটা রেজাল্ট সংশোধনে করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান।

হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক নীতি চাকমা বলেন, সমতলে যেমন নারীরা নিরাপত্তাহীনতায় ভোগে, পাহাড়ি নারীরা তার চেয়ে বেশি নিরাপত্তাহীনতায় ভোগে। এই সরকার ছাত্র-ছাত্রীদের নিরাপত্তা ও তাদের প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা দিতে ব্যর্থ। তাই ছাত্র-ছাত্রীদেরকে কখনো নিরাপদ সড়ক আন্দোলন, কখনো হাফ ভাড়ার জন্য আন্দোলনে রাস্তায় নামতে হচ্ছে।

সমাবেশের সভাপতি তুলতুল চাকমা বলেন, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ ছাত্র দাবি আদায়ে রাজপথে অবিচল। অতীতে নিরাপদ সড়ক আন্দোলনে পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীদের মত রাজপথে নেমেছিল। হাফ পাসের আন্দোলনেও পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ ছাত্রদের পাশে থাকবে। তিনি শিক্ষার্থীদের দাবি-দাওয়া মেনে নেওয়া এবং উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রকাশিত হওয়া কোটা রেজাল্ট বাতিল করে অবিলম্বে তা সংশোধানের দাবি জানান।

No comments: